প্রাকৃতিক উপায়ে মেহেদি কোন বানানোর নিয়ম

ঘরে বসে প্রাকৃতিক উপায়ে মেহেদি কোন কিভাবে তৈরি করা যায় এবং মেহেদি কোন তৈরি করতে কি কি উপকরণ লাগে তা সবাইকে জানাতে আজ আমি লিখতে বসেছি। তাহলে আসুন শুরু করি….

মেহেদি কোন। মেহেদি রাঙানো কনের হাত।
ছবিঃ মেহেদি রাঙা হাত!

ঈদ হোক কিংবা বিয়ের অনুষ্ঠান মেহেদি রাঙা হাত মেয়েদের সর্বপ্রথম প্রস্তুতি! শখ বা আহ্লাদে ছোট থেকে বড় সকল মেয়েরা মেহেদি পড়তে ভালবাসে।বড়দের কাছে একটু মেহেদির ফোঁটা দিতেই যেন কত শত বাহানা ছোট্ট সোনামনির। হাতের তালুতে ছোট একটি ফুল একে দিলেই তাতেই যেন হাসির মুক্তমালা ঝড়ে পরে।

পরিবারের বয়স্ক নানী-দাদিরাও হাতের নখ, পায়ের নখ সবসময় লাল রাখার চেষ্টা করেন। টিনেজাররা পার্লার, অভিজ্ঞ কারও সান্নিধ্যে অথবা নিজেই পছন্দমত মেহেদি ডিজাইন আঁকিয়ে নিতে পছন্দ করে।

আজকাল বাজারে পাওয়া ক্যামিকাল যুক্ত মেহেদি হাতের ত্বক ও চামড়ার ক্ষতি করে বসে। গাছের মেহেদি পাতার মত সেই রং যেন আর পাওয়ায় যায় না। তবে, নিজে খুব সহজেই বানিয়ে নিতে পারেন ন্যাচারাল মেহেদি কোন। কারণ এতে কেমিক্যাল এর চিন্তা ও থাকল না, সাথে পছন্দসই আকষনীয় রং ও পেয়ে গেলেন।

ন্যাচারাল মেহেদি কোন বানানোর উপায় ! 

প্রাকৃতিক উপায়ে মেহেদির কোন বানাতে নিচে দেওয়া উপকরণ ও ধাপগুলি অনুসরণ করতে হবে। 

মেহেদি তৈরীর  উপকরণ :

১. মেহেদী গাছের পাতা। 
২. গিফট রেপিং পেপার । 
৩. কসট্যাপ। 
৪.কাঁচি। 
৫. টুথপিক অথবা হিজাব স্ট্রেইট পিন। 

মেহেদি কোন যেভাবে তৈরি করবেন :

আপনার মেহেদি কোন টি তৈরি করতে নিচের ধাপগুলি অনুসরণ করুন। 

১. প্রথমত মেহদি পাতা বেটে পেস্ট করে নিন।

২. রেপিং পেপার টি চারপাশে সমান আকৃতির নিয়ে কাঁচি দিয়ে কেটে নিন।

৩. এবার, একপাশের মাঝখান থেকে হালকা সাইডের দিকে ফোল্ডের জন্য আঙ্গুল দিয়ে চেপে ফোল্ড করতে থাকুন৷ মনে

রাখবেন, নিজের প্রয়োজনমত অল্প অংশ ফাঁকা রাখবেন, যতটুক কোনের ডিজাইন দিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন। ফাঁকা যেন একটু বেশি ও না থাকে৷ এতে বাতাস ঢুকে মেহেদি পেস্ট নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

৪. কোনের মুখের দিকে কসটেপ দিয়ে আটকিয়ে নিন, যাতে সুক্ষ ছিদ্রটি ঠিকমত থাকে।ছিদ্রে হিজার স্ট্রেইট পিন আটকিয়ে মেহেদি পেস্ট ঢুকিয়ে নিন।

৫. মেহেদি কোনের উপরের অংশে সমুচার তিনকোনা ভাজের মত ফোল্ড করে নিন এবং ট্যাপ দিয়ে মুখটা বেধে নিন। ফোল্ডের দৃশ্যমান সকল অংশে ট্যাপ ভালমত লাগিয়ে নিন যাতে ছুটে না চায়। প্রয়োজনে টুথপিক অথবা হিজাব পিন লাগিয়ে নিন। এতে আরও মেহেদি কোনটির খুলে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে।
ব্যস তৈরী হয়ে গেল আপনার কাঙ্খিত ন্যাচারাল মেহেদি কোন। মেহেদির মন পছন্দ ডিজাইন দিয়ে রাঙ্গিয়ে তুলুন আপনার হাত!
মেহেদি তো দেয়, তবে অনেকের গাঢ় রং এর চাহিদা তো থাকেই। আর এই কাঙ্খিত গাঢ় রং পাওয়ার জন্য রয়েছে আজকের সহজ কিছু টিপস!

মেহেদির রং গাঢ় করার সহজ টিপস :

১. মেহেদি সর্বোচ্চ ৬/৭ঘন্টা হাতে শুকানো ভাল। এতে রং গাঢ় ও দীর্ঘস্থায়ী হয়। এজন্য, রাতে ঘুমানোর আগে মেহেদি পড়া উত্তম।
২. মেহেদি শুকানোর পরই হাত পানি দিয়ে না ধোয়া ভাল। এতে রং ৪-৫গুন হালকা হয়ে যাওয়ার আশংকা থাকে। হাতের তালুতে তালু ঘষে মেহেদি তুলে ফেলুন।
৩. মেহেদি শুকানোর পর নারকেল তেল বা সরষে তেল হাতে মেখে নিন। এতে হাতে উষ্ণতা বাড়ে এবং রং গাঢ় হয়।
৪.লেবুচিনির পানি রং গাঢ় করতে কার্যকরী ভুমিকা রাখে।প্রথমে চিনি ও পানির মিক্সার গরম করে নিন। এবার ঠান্ডা হওয়ার পর লেবুর রস মিক্স করুন। হাতে মালিশ করুন এবং ফল নিজেই দেখুন।
৫. লবঙ্গ ভাপ বা জিরা পানিও একইভাবে মেহেদি রঙ গাঢ় ও দীর্ঘস্থায়ী করতে সাহায্য করে।

কেমিক্যাল মুক্ত প্রাকৃতিক উপায়ে মেহেদি রাঙ্গা হাত হোক সুন্দর ও আকর্ষণীয়! রূপচর্চা ও সাঁজ সজ্জা হোক প্রাকৃতিক ও স্বাস্থ্যকর। প্রকৃতির ছোঁয়া লেগে থাকুক প্রতিটি প্রাণে। এই ভাবনা থেকেই আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। আশা করি আমার এ লেখাটিও আপনার ভালো লাগবে এবং কিছুটা হলেও উপকারে আসবে। আজ এ পর্যন্তই। আবারও দেখা হবে নতুন কোনো আর্টিকেলে নতুন কোনো বিষয়ে। ভালো ও সুস্থ থাকুন এই কামনায়, আল্লাহ হাফেজ! 

সময় হলে আমার অন্য লেখাগুলি পড়ুন ♥

For more update please follow our Facebook, Twitter, Instagram , Linkedin , Pinterest , Tumblr And Youtube channel.

Leave a Comment

error: Content is protected !!