ক্লান্তি ও দূর্বলতা দূর করার ৫টি উপায়, কিভাবে সব সময় উদ্যমী ও সক্রিয় থাকবেন

সারাদিনের পরিশ্রমের পর ক্লান্ত বোধ হওয়া স্বাভাবিক। ক্রমাগত ক্লান্তির কারণে শুধু আপনার মানসিক শক্তিই কমে না, আপনি শারীরিকভাবেও অস্থির থাকেন।

তবে ক্লান্তির অনেক কারণ থাকতে পারে। যেমনঃ

  • মানসিক চাপ
  • নিম্ন মানের খাবার
  • পর্যাপ্ত ঘুমের অভাব
  • লাইফস্টাইল ফ্যাক্টর

কিন্তু অলসতা আপনার জীবন কেড়ে নিচ্ছে?
আপনি কি বেশিরভাগ সময় অলস এবং দুর্বল বোধ করেন? এর কারণ আপনি ক্লান্ত এবং শক্তি পুনরুদ্ধার করতে হবে।

আপনার যদি ক্লান্তি থাকেন তবে তা কাটিয়ে উঠতে কিছু সহজ ব্যবস্থা নিতে হবে। ক্লান্তি কমাতে এবং ওয়ার্কআউটের সময় পারফরম্যান্স বাড়ানোর জন্য, ভাল কর্মক্ষমতা এবং সহনশীলতার জন্য পরিপূরক হিসাবে একইভাবে ক্লান্তি কমানোর কিছু সহজ উপায় রয়েছে ।

আপনি যদি কোনো রোগ থেকে সুস্থ হয়ে থাকেন তবে কিছু সময়ের জন্য দুর্বল হওয়া স্বাভাবিক। কিন্তু যদি দুর্বলতা বা ক্লান্তি থেকে যায়, তাহলে আপনার ক্লান্তির কারণ বিবেচনা করা উচিত এবং তা কাটিয়ে উঠতে ঘরোয়া উপায় চেষ্টা করা উচিত। আসুন জেনে নেই ক্লান্তি বা দুর্বলতা দূর করার ঘরোয়া প্রতিকার।

ক্লান্তির প্রধান কারণ

বেশিরভাগ মানুষের ক্লান্তি দুর্বলতার কারণে হয়। তাই কারো কারো ডায়াবেটিস ও থাইরয়েডের কারণে ক্লান্তি থাকে। আপনি যদি প্রায়ই ক্লান্ত বা অলস বোধ করেন তবে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা করা উচিত। যারা কঠোর পরিশ্রম করে তাদের পেশী ক্লান্ত বোধ করে। যারা বেশি হাঁটেন বা বয়সের কারণেও তাদের পায়ে ক্লান্তি বেশি হয়।

ক্লান্তির প্রতিকার

আমরা যখন ক্লান্তি কাটিয়ে ওঠার উপায় নিয়ে কথা বলি, তখন আমাদের ক্লান্তি নিয়ে আলাদাভাবে ভাবতে হবে। কিভাবে শরীরের ক্লান্তি থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়? আপনার যদি এই প্রশ্ন থাকে তবে আপনার জন্য বিভিন্ন সমাধান থাকবে। মানসিক অবসাদ থাকলে তার জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা নিতে হবে। আসুন জেনে নেই ক্লান্তি দূর করার কিছু সহজ উপায়।

মানসিক ক্লান্তি দূর করার উপায়

খুব বেশি স্ট্রেস বা স্ট্রেস নিলে মানসিক অবসাদ দেখা দেয়। এছাড়া যাদের খাবারে ভিটামিন কম থাকে তারাও মানসিক অবসাদ অনুভব করেন। মানসিক চাপ ও মানসিক ক্লান্তি দূর করতে পর্যাপ্ত ঘুমের পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করা উচিত।

কিভাবে পেশী ক্লান্তি উপশম করা যায়?
যারা প্রতিদিন ব্যায়াম করেন তারা কখনও কখনও পেশী ক্লান্তি অনুভব করেন। এই জন্য, আপনার খাদ্যে তরল গ্রহণের দিকে মনোযোগ দিতে হবে। আপনি যদি ঘন ঘন পেশী ক্লান্তি অনুভব করেন তবে অবশ্যই ব্যায়াম এবং তরল খাবারে মনোযোগ দিন।

যথেষ্ট ঘুম

সকালে সতেজ ও উদ্যমী ঘুম থেকে ওঠার জন্য পর্যাপ্ত ঘুম জরুরি। একজন ব্যক্তির সুস্থ থাকার জন্য 7-8 ঘন্টা ঘুমানো উচিত। এটি শরীরের হারানো শক্তি ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। দিনের বেলায় ক্লান্ত বোধ করলে একটু ঘুমাতে পারেন।

স্বাস্থ্যকর খাবার

আপনি যদি কম উদ্যমী বা ক্লান্ত বোধ করেন তবে ফল বা শুকনো ফল খাওয়ার চেষ্টা করুন। এটি আপনাকে তাত্ক্ষণিক শক্তি দেয় এবং আপনি উদ্যমী বোধ করতে শুরু করেন।

শারীরিক দূর্বলতা কাটিয়ে উঠার তাৎক্ষণিক উপায়

ওয়ার্কআউটের সময় আমরা প্রায়ই ক্লন্তি অনুভব করি। বিশেষ করে দুপুরের দিকে। এতে আমাদের প্রোডাক্টিভিটি অনেক কমে যায়। এক গ্লাস লেবুর শরবত, ডাবের পানি, আখের রস বা যেকোন ফলের শরবত আপনাকে তাৎক্ষণিক শারীরিক দূর্বলতা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করবে।
আরো পড়ুনঃ ডাবের পানির উপকারিতা

ক্লান্তি এবং দুর্বলতার জন্য কি ওষুধ আছে?

বেশিরভাগ মানুষই মনে করেন ক্লান্তি ও দুর্বলতা দূর করার কিছু ওষুধ আছে। যেখানে এটি হয় না, কারণ শরীরে যদি পুষ্টির অভাব থাকে, তবে তা পূরণ করাই আসল ওষুধ। আপনিও যদি অলসতা এবং ক্লান্তির শিকার হন, তাহলে আপনার খাদ্যাভ্যাসের দিকে বিশেষ নজর দিন।

1. সকালের নাস্তা

সকালের নাস্তা স্বাস্থ্যকর এবং ভারী হওয়া উচিত যাতে আপনি সারা দিন শক্তি পান। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সকালের নাস্তা খায় না বেশি ক্লান্ত হয়ে পড়েন।

সকালের নাস্তা না করলে ক্ষুধা লাগবে এবং ক্ষুধার কারণে ক্লান্তি ও অলসতা দেখা দিতে পারে। তাই সবসময় একটি সুষম, পুষ্টিকর এবং উচ্চ আঁশযুক্ত ব্রেকফাস্ট দিয়ে দিন শুরু করুন।

যেমন: ওটমিল, সিরিয়াল, ডিম, ফল বা দুধ ইত্যাদি। প্রাতঃরাশের মধ্যে পেস্ট্রি বা ডোনাটস অন্তর্ভুক্ত করবেন না, এগুলো আপনার অবাঞ্ছিত ওজন বাড়াতে পারে। উপরে উল্লিখিত স্বাস্থ্যকর খাবার ক্ষুধা কমাতে এবং শক্তি বজায় রাখতে সাহায্য করবে।

2. ব্যায়াম

ব্যায়াম করার অনেক উপকারিতা রয়েছে। যেমন

  • শারীরিকভাবে সক্রিয় রাখে
  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়
  • ডিপ্রেশন কমাতে সহায়ক
  • শক্তি বৃদ্ধি করে
  • ত্বক উজ্জ্বল হয়

আপনি যদি ক্লান্ত বোধ করেন তবে আপনি ব্যায়াম করতে পারেন। এছাড়া আপনি চাইলে যোগব্যায়ামও করতে পারেন । ব্যায়াম করার মাধ্যমে, আপনি নিজেকে আগের চেয়ে অনেক বেশি উজ্জীবিত বোধ করবেন। যোগব্যায়াম করার সময় গভীর শ্বাস এবং স্থিতিশীল ভঙ্গির কারণে, অক্সিজেন ভালভাবে শরীরে পৌঁছায়, যা আপনাকে শক্তিশালী অনুভব করে।

একটি ব্রিটিশ সমীক্ষা অনুসারে, যারা 6 সপ্তাহ ধরে যোগব্যায়াম করেছিলেন তারা যোগব্যায়াম করেননি তাদের চেয়ে বেশি মননশীল, উদ্যমী এবং আত্মবিশ্বাসী ছিলেন।

সমস্ত ধরণের ব্যায়াম আপনার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ এবং পেশীতে টান তৈরি করে ক্লান্তি দূর করে। আপনি যদি জিমে যেতে না পারেন, আপনি কিছু সাধারণ শারীরিক কার্যকলাপ করতে পারেন যেমন দ্রুত হাঁটা, সিঁড়ি বেয়ে ওঠা বা গার্ডেনিং ।

3. ওজন কমান

ক্লান্তিও অলসতা এবং দুর্বলতা সৃষ্টি করে। আপনার ওজন বেশি হলে, ওজন কমানোর পর, আপনি আগের চেয়ে বেশি শক্তি বোধ করবেন। গবেষণায় দেখা গেছে, ওজন কমলে শক্তির মাত্রা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে।

তাই একটি ভাল ডায়েট এবং ওয়ার্কআউট আপনার জীবনধারার একটি অংশ করুন! এছাড়াও, ডায়েট থেকে মিষ্টি কমিয়ে দিন এবং সীমিত পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট খান।

4. আরো ঘন ঘন খাওয়া

যদি ক্ষুধা ক্লান্তি সৃষ্টি করে, তবে আপনাকে ক্ষুধা কমানোর বিকল্পগুলি খুঁজে বের করতে হবে। দীর্ঘ সময় ধরে কিছু না খাওয়ার কারণে আপনার ক্ষুধার্ত লাগছে। তাই অল্প অল্প করে খাবার খেতে থাকুন।

যখন আপনি ক্ষুধার্ত থাকেন, আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা কমে যায় এবং আপনার মস্তিষ্ক সঠিকভাবে কাজ করতে পারে না। তাই মিষ্টির পরিবর্তে স্বাস্থ্যকর পুষ্টিকর খাবার যেমন উচ্চ আঁশযুক্ত ফল এবং সিরিয়াল সারাদিন খান।

শরীরে ম্যাগনেসিয়াম এবং ফোলেটের ঘাটতিও বাদাম ও চিনাবাদাম খেলে পূরণ হয়।

5. হাইড্রেটেড থাকুন

পর্যাপ্ত পানি পান না করলেও আপনি ক্লান্ত এবং দুর্বল বোধ করতে পারেন। তাই পর্যাপ্ত পানি পান করুন, যাতে আপনি যে কোনো ধরনের দুর্বলতা থেকে রক্ষা পাবেন। আপনার প্রতিদিন কতটা পানি পান করা দরকার তা জানাও গুরুত্বপূর্ণ।

উপসংহার: এ ছাড়া খেজুর, মাছ ও প্রোটিন জাতীয় খাবার খাওয়া উচিত। এটি আপনাকে দুর্বলতা বা ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

Leave a Comment