শীতে ত্বকের যত্নের ঘরোয়া বিউটি টিপস

গোলাপী শীতল সকাল, শীতল বাতাস এবং নরম রোদ কে না পছন্দ করে। তবে ঠান্ডা বাতাসের কারণে, ত্বক আর্দ্রতা হারাতে শুরু করে এবং শুষ্ক ও প্রাণহীন হয়ে পড়ে। এমন পরিস্থিতিতে মানুষ শীতে বিউটি টিপস হিসেবে বিভিন্ন ধরনের ক্রিম ও লোশন ব্যবহার করলেও তাতে তেমন কোনো উপকারে আসে না। অতএব, আমরা ঘরোয়া প্রতিকার চেষ্টা করার পরামর্শ দিই। এই পোস্টে, আমরা শীতে ত্বকের যত্নের ঘরোয়া টিপস বলছি, যা বেশ সহজ।

শীতে মুখের উজ্জ্বলতা কীভাবে আনবেন এবং কী কী টিপস অবলম্বন করবেন তা নিচে আলোচনা করা হলো।

শীতকালীন ত্বকের যত্নের জন্য ঘরোয়া উপায়

০১. পেঁপে এবং মধুর ফেস প্যাক! 

জিনিসপত্র : 

  • পাকা পেঁপের খোসা।
  • দুই চামচ মধু!

বানানোর প্রক্রিয়াপেঁপের খোসা ভালো করে পিষে নিন, যাতে কোনো পিণ্ড না থাকে। এবার এতে মধু যোগ করুন। তারপর এই পেস্টটি আপনার মুখ এবং শরীরের অন্যান্য শুষ্ক ত্বকে লাগান। প্যাকটি একটু শুকিয়ে তারপর ধুয়ে ফেলুন।

কতটা উপকারী: পেঁপেকে স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী ফল হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ত্বক সুন্দর রাখতে ফলের প্রতিটি অংশ যেমন বীজ, পাল্প এমনকি খোসাও ব্যবহার করা যেতে পারে। এটিতে ময়শ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ত্বককে শুষ্কতা থেকে রক্ষা করতে পারে। একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে পেঁপের খোসা মধুর সাথে মেশানো হলে তা ত্বককে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ মধু খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা নোটখাতা থেকে!

০২.গ্লিসারিন

জিনিসপত্র : 

  • সামান্য গ্লিসারিন
  • সুতি পশম

বানানোর প্রক্রিয়া : আপনার মুখ ধুয়ে হালকাভাবে মুছুন। এবার গ্লিসারিনে তুলা ডুবিয়ে মুখে লাগান। আপনার চোখে এবং মুখের ভিতরে এটি যেন প্রবেশ করতে না পারে সতর্ক থাকুন। এটি রাতে ঘুমানোর আগেও লাগাতে পারেন। তারপর পরদিন সকালে ধুয়ে ফেলুন।

কতটা উপকারী: অনেক প্রসাধনী পণ্য তৈরিতে গ্লিসারিন ব্যবহার করা হয়। এমনকি অনেক সাবান কোম্পানি তাদের পণ্যে গ্লিসারিন ব্যবহার করার দাবি করে। কারণ এটি শুষ্ক ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। এটি একটি প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে এবং ত্বককে হাইড্রেটেড রাখতে সাহায্য করতে পারে।

০৩. ডিমের কুসুম এবং অলিভ অয়েল ফেসপ্যাক!

জিনিসপত্র :

  • দুটি ডিমের কুসুম
  • ১ চা চামচ জলপাই তেল

বানানোর নিয়ম : ডিমের কুসুমে অলিভ অয়েল যোগ করুন এবং ভাল করে বিট করুন, যাতে একটি মিশ্রণ তৈরি হয়। এবার এই মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে দিন। তারপর পরিষ্কার জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কতটা উপকারী : শীতে ত্বকের যত্নে ঘরোয়া উপায় হিসেবে অলিভ অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে। অলিভ অয়েলে এসেনশিয়াল ফ্যাটি অ্যাসিড (EFAs) পাওয়া যায়, যা ত্বকের ভিতরে গিয়ে ময়শ্চারাইজ করতে সহায়ক। একই সময়ে, ডিমের কুসুমে উপস্থিত ফসভিটিন নামক একটি প্রোটিন UV রশ্মির কারণে সৃষ্ট অক্সিডেটিভ স্ট্রেস থেকে ত্বককে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

০৪. নারিকেল তেল!

জিনিসপত্র :

  • সামান্য নারকেল তেল বা ভার্জিন নারকেল তেল।

বানানোর প্রক্রিয়াআপনার শুষ্ক ত্বকে নারিকেল তেল লাগান এবং ছেড়ে দিন। আপনি এটি রাতে ঘুমানোর সময় লাগাতে পারেন অথবা দিনে গোসলের আগে বা পরে লাগাতে পারেন। আপনার যদি তৈলাক্ত ত্বক হয় তবে এটি একটি ফেসপ্যাকের সাথে মিশিয়ে নিতে পারেন। আরও জানতে নোটখাতা ব্লগ থেকে নারিকেল তেলের উপকারিতা আর্টিকেলটি পড়তে পারেন। 

কতটা উপকারী : আমরা শীতকালে সৌন্দর্যের টিপস হিসাবে নারিকেল তেল ব্যবহার করার পরামর্শ দিই। এটি একটি প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার। NCBI দ্বারা প্রকাশিত একটি গবেষণা নিশ্চিত করেছে যে নারিকেল তেল খনিজ তেলের চেয়ে ভাল উপায়ে ত্বককে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করতে পারে।

০৫. দুধ এবং বাদাম!

জিনিসপত্র :

  • আধা কাপ দুধ।
  • তিন থেকে চার ফোঁটা বাদাম তেল। 
  • সুতি পশম। 

বানানোর প্রক্রিয়াএকটি পাত্রে উভয় উপাদান মিশিয়ে নিন। এবার তুলোর সাহায্যে এই মিশ্রণটি পরিষ্কার মুখে লাগান। প্রায় 15-20 মিনিট পরে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 

কতটা উপকারী : শীতে কীভাবে মুখের উজ্জ্বলতা আনবেন, এই প্রশ্নের উত্তরে দুধ ও বাদাম দিয়ে তৈরি ফেসপ্যাক ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া যেতে পারে। আসলে, দুধ এবং বাদামের এই দ্রবণটি ঠান্ডা ঋতুতে দাগ দূর করতে ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে ব্যবহার করা খুবই উপকারি প্রমাণিত হয়েছে। দুধ ত্বককে হাইড্রেট করার পাশাপাশি দাগ কমাতে সাহায্য করে। আসলে, দুধ ত্বক ব্লিচ করতে সহায়ক, যা মুখের দাগের প্রতিকার হতে পারে। একই সময়ে, বাদাম তেল একটি প্রাকৃতিক ইমোলিয়েন্ট, যা ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সহায়ক। আরও জানতে বাদাম খাওয়ার উপকারিতা আর্টিকেলটি পড়তে পারেন। 

০৬.অ্যাভোকাডো এবং মধু!

জিনিসপত্র :

  • ২ থেকে ৪ ফোঁটা অ্যাভোকাডো তেল।
  • ২ চামচ মধু।

বানানোর নিয়মঅ্যাভোকাডো তেল এবং মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি আপনার মুখে এবং ঘাড়ে লাগান। 10 থেকে 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন, তারপর শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কতটা উপকারী : শীতকালে শুষ্ক ত্বকের ঘরোয়া প্রতিকারের এই তালিকায়, একটি রেসিপি হল অ্যাভোকাডো তেল এবং মধুর মিশ্রণ। অ্যাভোকাডো ফল যতটা পুষ্টিতে ভরপুর, এটি থেকে তৈরি এসেনশিয়াল অয়েলও ততটাই উপকারী। এটা বলা হয় যে অ্যাভোকাডো তেল সহজেই ত্বকে শোষিত হয় এবং এটি নরম রাখতে সাহায্য করতে পারে। একই সময়ে, মধু একটি প্রাকৃতিক ময়শ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে, যা ত্বকের জন্য খুব উপকারী। আরও জানতে নোটখাতা ব্লগের মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় আর্টিকেলটি পড়ে আসতে পারেন। 

প্রিয় পাঠক পাঠিকা, আশা করি শীতে মুখের ও ত্বকের যত্নের ঘরোয়া বিউটি টিপস গুলো জেনে আপনার ভালো লেগেছে এবং এই শীতে শুষ্ক ত্বকের যত্ন নিতে এই ৬টি ঘরোয়া বিউটি টিপসের যেকোনো একটি প্রয়োগ করবেন। 

For more update please follow our Facebook, Twitter, Instagram , Linkedin , Pinterest , Tumblr And Youtube channel.

Leave a Comment