সম্রাট কাঁদে যার কাছে আমিও কাঁদব তার কাছে

যে কোনো ব্যাপারে সাহায্য কামনা করতে হবে একমাত্র আল্লাহর কাছে। একদিন আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, কখন মানুষ আল্লাহর লাছে সবচেয়ে বেশি ঘনিষ্ঠ হয়ে যায়। উত্তরে তিনি বলেছিলেন, মানুষ যখন আল্লাহকে সেজদা দেয়, তখন মানুষ আল্লাহর সবচেয়ে বেশি নিকটবরতী হয়ে যায়। সুতরাং কোনো কিছুর প্রয়োজন হলে একমাত্র আল্লাহর কাছেই চাইতে হবে।

সম্রাট শাহজাহানের জীবনীতে এমনই একটি ঘটনার উল্লেখ দেখতে পাওয়া যায়। ঘটনাটি হলো-

একদিন কোনো এক ভিক্ষুক কিছু পাওয়ার আশায় সম্রাট শাহজাহানের দরবারে আগমন করল। সেখানে গিয়ে সে জানতে পারল, সম্রাট এখন মসজিদে নামাজ আদায় করছেন। লোকটি মসজিদের দরজার সামনে উপস্থিত হয়ে দেখতে পেল, প্রতাপশালী শাসক সম্রাট শাহজাহান নামাজ শেষে দুটো হাত ওপরে তুলে আল্লাহর দরবারে কাকুতি-মিনতি করছেন, আর তার দু’চোখের কোণ বেয়ে শ্রাবণের বারি ধারার মতই অশ্রু ঝরছে।

মুনাজাত শেষ করে সম্রাট মসজিদ থেকে বাইরে এলেন। ভিক্ষুক লোকটি সম্রাটকে সালাম জানাল। তিনি সালামের জবাব দিলেন। এরপর লোকটি সম্রাটের কাছে কোনো কিছুর আবেদন না করে ঘুরে দাঁড়িয়ে হনহন করে চলে যেতে লাগল।

সম্রাট অবাক হলেন। দারুণ বিস্মিত হলেন। তার মনে প্রশ্ন জাগল, তার কাছে এসে তো কেউ কোনোদিন কোনো আবেদন-নিবেদন না করে ফিরে যায় না। কিন্তু এ লোকটিকে দেখতে অভাবী মনে হলেও সে কেন কিছু না চেয়ে ফিরে যাচ্ছে?

ভিখারী লোকটি চলে যাচ্ছে আর সম্রাট বিস্মিত দৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে রয়েছেন। সামান্য সময় পর সম্বিত ফিরে পেতেই তিনি লোকটিকে ডাক দিলেন। বললেন, এই যে ভাই! এদিকে এসো।

লোকটির কানে সম্রাটের আহ্ববান পৌঁছামাত্র লোকটি ধীর পায়ে সম্রাটের সামনে এসে স্থির হয়ে দাঁড়াল।

ক্ষমতাধর সম্রাট লোকটির চোখের ওপর চোখ রেখে মমতা ভরা কণ্ঠে প্রশ্ন করলেন, ভাই! আমার কাছে এসে কোনো ব্যক্তি তো কিছু না চেয়ে চলে যায় না। তোমাকে দেখে তো অভাবী মনে হচ্ছে। কিন্তু তুমি আমার কাছে কিছু না চেয়ে কেন চলে যাচ্ছিলে?

লোকটি দৃঢ় কণ্ঠে জানাল, মহামান্য সম্রাট! আপনার ধারণা ঠিক যে, আমি অভাবী। আমি ভিক্ষুক। ভিক্ষা করেই জীবিকা নির্বাহ করি। আপনার কাছেও এসেছিলাম ভিক্ষার আশায়। এসেছিলাম, আপনার কাছ থেকে বড় রকমের কিছু সাহায্য পাব, যার ফলে বাকি জীবন আমাকে আর ভিক্ষা করতে না হয়। কিন্তু আপনার কাছে এসে আমার জ্ঞানচক্ষু উন্মোচিত হয়ে গিয়েছে। আমি দেখলাম, আপনি পৃথিবীর সমস্ত সম্রাটদের সম্রাটের কাছে দু’হাত তুলে ভিখারীর মতো অনুনয়-বিনয় করে কাঁদছেন। এই দৃশ্য দেখে আমি স্থির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলাম, সম্রাট কাঁদে যে সম্রাটের কাছে, আমিও কাঁদব তাঁরই কাছে। আমি বাকি জীবন ঐ রাজাধিরাজ মহান আল্লাহ ব্যতীত আর কারো কাছে কখনোই কিছু চাইব না।

এই বলে সে চলে গেল।

প্রিয় বন্ধুগণ! দেখলে তো কী সুন্দর শিক্ষণীয় ঘটনা এটি! তাই আজ থেকে তোমরাও প্রতিজ্ঞা করো, আমরা আর মানুষের কাছে কিছুই চাইব না। যা কিছু চাওয়ার মহান আল্লাহর কাছেই চাইব। তিনিই আমাদের সমস্ত আশা ও চাহিদা পূরণ করবেন।

লেখক : মাওলানা মুহাম্মদ মুফীজুল ইসলাম। 

উৎসআদর্শ কিশোর কিশোরী ৩ (গল্পের বই) বই থেকে। 

এরপর পড়ুনত্যাগের শিক্ষা (কিশোর কিশোরীদের গল্প ১৪)

For more update please follow our Facebook, Twitter, Instagram , Linkedin , Pinterest , Tumblr And Youtube channel.

Leave a Comment

error: Content is protected !!